অনিন্দ্যবাংলা :  ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেছেন, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়কে কেবল বিশ্ববিদ্যালয় হলে চলবে না, এটিকে ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় হতে হবে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বের এক নম্বর হাই প্রোফাইল রোবোটিক কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হবে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার আরো বলেন, আগামী পাঁচ বছর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ পরিচালিত হলে বিশে^ উন্নয়নের রোল মডেল হবে বাংলাদেশ। ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল দুনিয়ার শিক্ষক ও রোল মডেলে পরিণত হয়েছেন। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠ্যক্রম সিলেবাসে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়টি ইতিমধেই বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, আগামী দুই বছরের মধ্যে প্রাথমিক স্তরেও তা বাধ্যতামূলক করা হবে। তিনি আরো বলেন চলতি বছরের মধ্যে দেশের প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদে অপটিক্যাল ফাইবার লাইন পৌছে যাবে।

শনিবার (৭ জুলাই) দুপুরে ক্যাম্পাসে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের একযুগ পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার এসব কথা বলেন।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সহযোগিতায় কবি নজরুল বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আয়োজিত একযুগ পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ. এইচ. এম মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে বক্তব্যদানকালে নজরুল ট্রাস্ট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান ইমোরিটাস ও জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম বলেন, বলেন, ‘কবি নজরুলের জীবনী এখনও বিকৃতভাবে প্রকাশিত হচ্ছে। আমাদের কাজ হলো নজরুলের বস্তনিষ্ঠ জীবনী প্রকাশ করা। নার্গিসের সাথে নজরুলের বিয়ে হয় নি। কাবিন নামায় ঘর জামাই থাকার বিষয়টি উল্লেখ থাকায় তিনি বিয়ের আসর হতে চলে যান।’ কবি নজরুলের কোন একটি গান বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত হিসেবে নির্ধারণ করার জন্য তিনি মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলরকে আহ্বান জানান।

জাতীয় কবির মর্যাদা অক্ষুন্ন রেখে একটি আধুনিক ও বিশ্বমানের বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি উপস্থিত সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আলোচনা সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নৌ পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ, দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব শামসুল আরেফিন, প্রখ্যাত চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব মাহমুদ সাজ্জাদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রধান তদন্ত কর্মকর্তা আবদুল হান্নান খান, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান এ কে এম দেলোয়ার হোসেন, আন্তর্জাতিক নজরুল চর্চা কেন্দ্রের মাননীয় মহাসচিব রাশেদুল হাসান শেলী, বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুব্রত কুমার দে, শিক্ষক সমিতির সভাপতি তপন কুমার সরকার, আন্তর্জাতিক নজরুল চর্চা কেন্দ্রের ভাইস চেয়ারম্যান নূরুজ্জামান মুন্না এবং ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এ কে এম গালিব খান। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর এম জালাল উদ্দিন, স্বাগত বক্তব্য রাখেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) ড. মো. হুমায়ুন কবীর। শিক্ষার্থীদের পক্ষ হতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বিশ^বিদ্যালয় শাখার সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম বাবু এবং সাধারণ সম্পাদক মো. রাকিবুল ইসলাম রাকিব প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

আলোচনা সভা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম, পরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগ এবং সবশেষে থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের পরিবেশনায় নাটক মঞ্চায়িত হয়। আলোচনা সভা উপস্থাপনা করেন থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক জনাব মাজহারুল হোসেন তোকদার এবং নুসরাত শারমিন তানিয়া। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী জনাব ইমরান হাসান শিমুল হেড অব প্রোগ্রাম, নাট্যকলা বিভাগ, ইনডিপেন্ডেন্ট ই্উনিভার্সিটি।