আবহাওয়া:
anindabangla

৮ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , শনিবার , ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ


অনিন্দ্যবাংলা ডেস্ক: আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব বাঘ দিবস। এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বাঘ বাড়াতে পণ, রক্ষা করি সুন্দরবন’। করোনার কারণে এবারের বাঘ দিবসে বড় কোনো অনুষ্ঠান থাকছে না। তবে ওয়েবিনারে আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছে। আলোচনায় পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রীসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নিবেন।।বাংলাদেশ বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের জরিপ মোতাবেক সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ছিল ১০৬টি। তিন বছর পর ক্যামেরা ট্র্যাপিংয়ের মাধ্যমে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী সুন্দরবনে ১১৪টি বাঘের অস্তিত্ব চিহ্নিত হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ড লাইফ ফান্ডের তথ্যমতে, একশ’ বছর আগে পৃথিবীতে বাঘ ছিল এক লাখেরও বেশি। তবে বর্তমানে সে সংখ্যা ৯৫ শতাংশ কমে ৩ হাজার ৯০০টিতে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে পৃথিবীর মাত্র ১৩টি দেশে বাঘের অস্তিত্ব বজায় রয়েছে। এই ১৩টি বাঘ সমৃদ্ধ দেশকে বলা হয় Tiger Range Country (TRC)। দেশগুলো হচ্ছে, বাংলাদেশ, ভারত, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া, চীন, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, লাওস, ভুটান, নেপাল ও রাশিয়া। বাঘের ৮টি উপ-প্রজাতির মধ্যে বালিনীজ টাইগার, জাভানীজ টাইগার ও কাস্পিয়ান টাইগার ইতোমধ্যে পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বর্তমানে বাঘের (Penthera tigris) ৫টি উপ-প্রজাতির (sub-species) কোনো রকমে টিকে আছে। এগুলো হল, বেঙ্গল টাইগার, সাইবেরিয়ান টাইগার, সুমাত্রান টাইগার, সাউথ চায়না টাইগার এবং ইন্দো-চায়না টাইগার। ২০১০ সালে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত টাইগার সামিট ও ২০১৪ সালে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাঘ সম্মেলনে ১৩টি বাঘসমৃদ্ধ দেশ ২০২২ সালের মধ্যেই নিজ নিজ দেশে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করার চুক্তি করে। অর্থাৎ এ চুক্তিটি বাস্তবায়ন হলে ২০২২ সালে পৃথিবীতে বাঘের সংখ্যা বর্তমানের তুলনায় দ্বিগুণ হবে। বাংলাদেশের সর্বশেষ টাইগার অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী ২০২৭ সালের মধ্যেই সুন্দরবনে বাঘের ক্যারিং ক্যাপাসিটি (সুষম ধারণক্ষমতা) অর্জনের চেষ্টা করছে বন বিভাগ। টাইগার অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী সুন্দরবনে বাঘের ক্যারিং ক্যাপাসিটি ২৫০টি। বাঘ বিশেষজ্ঞদের মতে, বাঘের সংখ্যা দ্রুত কমে যাওয়ার এই প্রবণতা চলমান থাকলে আগামী কয়েক দশকে পৃথিবী থেকে হারিয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। বাংলাদেশে বাঘ নিধন ও হরিণ শিকার বন্ধের জন্য ২০১২ সালে অধিকতর শাস্তির বিধান নিশ্চিত করতে বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন প্রণয়ন করা হয়। এই আইনের ধারা ৩৬ অনুযায়ী, বাঘ শিকার বা হত্যা জামিন অযোগ্য অপরাধ। চূড়ান্ত বিচারে বাঘ শিকারী বা হত্যাকারী সর্বোচ্চ ৭ বছর সর্বনিম্ন ২ বছর কারাদণ্ড এবং জরিমানা ১ লক্ষ থেকে ১০ (দশ) লক্ষ টাকা পর্যন্ত অর্থ দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।





সেনাবাহিনীতেই ফিরে যাচ্ছেন  মমেকহা  পরিচালক ব্রিগেডিয়ার নাসিরউদ্দিন   

জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন শিক্ষা অফিসার জীবন আরা বেগম

ময়মনসিংহে তিনজনের করোনা ভাইরাস সনাক্ত

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা বিষয়ক জরুরি তথ্য

ময়মনসিংহের তারাকান্দায় ৫ জন করোনায় আক্রান্ত !

করেনা সংকটে হত দরিদ্রদের সাহায্যে এগিয়ে আসলেন বিমান চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান

ময়মনসিংহে আকুয়ায় র‌্যাবের অভিযানে টিসিবির সয়াবিন তেল উদ্ধার : আটক

ময়মনসিংহের জাস্টিন ট্রুডু; মেয়র ইকরামুল হক টিটু

বৈশ্বিক দুর্যোগে ধর্ম-বর্ণ ভেদাভেদ ভুলে আসুন সকলের পাশে দাঁড়াইঃ সাজ্জাদুল হাসান

 জয়িতা শিল্পী : মানবতার এক ফেরীওয়ালা

Top