আবহাওয়া:
anindabangla

৩১শে মে, ২০২০ ইং , রবিবার , ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ


করোনা যুদ্ধে সেবা ও মানবিকতা দিয়ে লাখো মানুষের হৃদয় জয় করলেন ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ

“মুজিববর্ষে অঙ্গিকার পুলিশ হবে জনতার” এ শ্লোগানটি যখন মুজিব শতবর্ষকে সামনে রেখে উচ্চারিত হয়, তখন অনেকে এটিকে নেহায়েত একটি  সাধারণ বিষয় হিসেবে দেখলেও বাস্তবে করোনা আতংক যখন মার্চের শুরুতে দেখা দেয়- তখন করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর সেবাদানের একটি ভিন্নচিত্র পরিলক্ষিত হয়।

এ কথা সত্য যে, একসম দেশের বেশীরভাগ মানুষের পুলিশের উপর তেমন কোন আস্থা ছিলনা। কিন্তু করোনা দূর্যোগে বাংলাদেশ পুলিশের ভূমিকা বিশেষ করে মানবিকতা ও মহানুভবতা একদিন  স্বর্ণাক্ষরে লেখা হবে।

গত মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহের পর দেশে করোনা আতংক দেখা দিলে ২৬ মার্চ থেকে সব ধরণের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। তারপর যেন একটি বিশেষ দায়িত্ব পড়ে পুলিশের উপর। তারই ধারাবাহিকতায় ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের সুপার মো: আহমারউজ্জামানের নির্দেশনায় জেলাব্যাপী পুলিশের সচেতনতা কার্যক্রম বেড়ে যায়। এসপি আহমারউজ্জামানের প্রত্যক্ষ তত্বাবধনে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ নগরের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি অসহায় দরিদ্র মানুষের একমাত্র ভরসার স্থল হিসেবে ব্যাপক তৎপরতা শুরু করে।

সেবাদান  প্রসঙ্গে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু  বলেন, ময়মনসিংহ গোয়েন্দা পুলিশ করোনা যুদ্ধে তাদের তৎপরতা প্রশংসার দাবী রাখে। মাঠ পর্যায়ে তারা যেভাবে পরিশ্রম করছে, সেজন্য তাদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। এ প্রসঙ্গে একটি কথা যা একান্তই আমার ব্যক্তিগত মতামত, করোনা মোকাবিলায় সিটি মেয়র ইকরামুল হক টিটু ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ মাঠে-ঘাটে যে ভূমিকা রাখছেন, তার মুল্যায়ন একদিন হবেই।


যাক, যে কথা বলছিলাম করোনার ভয়াবহতা সর্ম্পকে সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি, অসহায়দের খাবার যোগার, সাধারণ মানুষের জান মালের নিরাপত্তা, রাত জেগে নগরময় মটরসাইকেল মহড়া দিয়ে মানুষকে ঘরে থাকার প্রেরণা যোগানো, সচেতন থাকুন, নিরাপদ থাকুন শ্লোগানে উদ্বুদ্ধ করতে মার্চের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত বিরামহীন কাজ করে গেছেন। ক্লান্তিহীন কঠোর পরিশ্রম করে প্রতিরাতে ২/৩ শ অভাবী অভুক্ত মানুষকে রান্না করা খাবার পরিবেশন করেছেন  যা এখনও অব্যাহত।

ঢাকাসহ করোনা বিভিন্ন আক্রান্ত এলাকা থেকে আগত লোকদের নগরে প্রবেশ ঠেকাতে ও সামাজিক দূরত্ব রক্ষায় যান্ত্রিক যানবাহন বন্ধ করতে, নিয়ম মোতাবেক মুদি দোকান ও কাঁচা বাজার বন্ধে নিরলস কাজ করে চলেছেন তারা। পাশাপাশি রাতের আঁধারে নিরন্ন মানুষের ঘরে চাল,ডাল পৌঁছে দিয়ে সাধারণ মানুষকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়ে চলেছেন। আবার গভীর রাতে অভুক্ত মানুষকে রান্না করা খাবার মুখে তুলে দিচ্ছেন।

২৬শে মার্চ থেকে সরকারী বে সরকারী অফিস আদালত,দোকানপাট বন্ধের পর খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের অন্ন যোগানোর মত কঠিন ও কষ্টসাধ্য কাজ জীবনবাজী রেখে নিরলসভাবে করে চলেছেন ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ, সেজন্য তাদের স্যালুট জানাই। সেই সাথে পুলিশ সুপার মো: আহমারউজ্জামান ও অধিনস্থদের অনিন্দ্যবাংলার পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন।

লেখক: রবীন্দ্র নাথ পাল

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক ও সাবেক নির্বাহী সদস্য বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইজে)

0





সেনাবাহিনীতেই ফিরে যাচ্ছেন  মমেকহা  পরিচালক ব্রিগেডিয়ার নাসিরউদ্দিন   

ময়মনসিংহে তিনজনের করোনা ভাইরাস সনাক্ত

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা বিষয়ক জরুরি তথ্য

করেনা সংকটে হত দরিদ্রদের সাহায্যে এগিয়ে আসলেন বিমান চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান

ময়মনসিংহের তারাকান্দায় ৫ জন করোনায় আক্রান্ত !

ময়মনসিংহে আকুয়ায় র‌্যাবের অভিযানে টিসিবির সয়াবিন তেল উদ্ধার : আটক

ময়মনসিংহের জাস্টিন ট্রুডু; মেয়র ইকরামুল হক টিটু

বৈশ্বিক দুর্যোগে ধর্ম-বর্ণ ভেদাভেদ ভুলে আসুন সকলের পাশে দাঁড়াইঃ সাজ্জাদুল হাসান

 জয়িতা শিল্পী : মানবতার এক ফেরীওয়ালা

ভেস্তে গেলো ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের ত্রাণ বিতরণ

Top