anindabangla

১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , বুধবার , ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

অনিন্দ্যবাংলা ডেস্ক: মুজিববর্ষ উপলক্ষে, ধর্মীয় ভুল ব্যাখ্যা দূর করে ইসলামের সঠিক বার্তা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার দেশব্যাপী মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণ করছে। তারই অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে একযোগে সারাদেশে ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বেলা সাড়ে ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মাধ্যমে উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তন্মধ্যে ময়মনসিংহে ৩টি জেলায় ৬টি মডেল মসজিদ হচ্ছে- ময়মনসিংহের গফরগাঁও ও তারাকান্দা উপজেলা, জামালপুর সদর ও ইসলামপুর উপজেলা, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া ও কুলিয়ারচর উপজেলা।

 

 

ময়মনসিংহের গফরগাঁও প্রান্তে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন – সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল। আরো বক্তব্য রাখেন গণপূর্ত ময়মনসিংহ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সাইফুজ্জামান চুন্নু, উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন বাদল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তাজুল ইসলাম, পৌর মেয়র ইকবাল হোসেন সুমন প্রমূখ।

তারাকান্দা উপজেলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রাঙ্গণে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার মোঃ শফিকুর রেজা বিশ্বাস বলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন আর তার সুযোগ্য কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশব্যাপী মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণ করে বিশে^ নজির সৃষ্টি করেছেন।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক, গণপূর্ত ময়মনসিংহ সার্কেলের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী একেএম কামরুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজলে রাব্বী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন ময়মনিসংহ বিভাগীয় পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ, উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ফজলল হক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজাবে রহমত, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী (রুণু ঠাকুর) ও সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়া সরকার প্রমূখ।

প্রতিটি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণে গড়ে ১৩ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। হজ্ঝে গমণেচ্ছুদের রেজিষ্ট্রশন কেন্দ্র ছাড়াও এসব মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের প্রথম তলায় ইমাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, প্রতিবন্ধীদের নামাজ কক্ষ, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বুক সেলফ সেন্টার, ডাইনিং কক্ষ, রান্না ঘর, প্রতিবন্ধী কর্ণার, মৃত ব্যক্তির গোসলের সুব্যবস্থা, বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন কক্ষ, অজুখানা, মসজিদ ভিত্তিক শিক্ষা প্রকল্পের কক্ষ ইত্যাদিসহ গাড়ি পার্কিং এর সুব্যবস্থা।

দ্বিতীয় তলায় রয়েছে প্রধান নামাজ কক্ষ, অজুখানা, বাথরুম ও টয়লেটের সুব্যবস্থা, সম্মেলন কক্ষ, শানের জন্য প্রশস্ত প্রবেশপথ, ইসলাতিক ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন অফিস কক্ষ ও সুপ্রশস্ত সিঁড়ি।

তৃতীয় তলায় রয়েছে পুরুষ ও মহিলাদের নামাজ কক্ষ, বাথরুম ও টয়লেটের সুব্যবস্থা, অফিস এরিয়া, ইমাম মোয়াজ্জিন ও প্রশিক্ষক থাকার কক্ষ, ইসলামিক রিসার্স সেন্টার, গেস্টরুম, ইসলামিক লাইব্রেরী ও মক্তব ইত্যাদি।

এছাড়াও গভীর নলকূপ, অভ্যন্তরীন রাস্তা, গেইট, গার্ডরুম, ভূগর্ভস্থ জলাধার, ১৫০ কেভিএ বিদ্যুৎ সাবস্টেশন, ৩০ কেভিএ জেনারেটর, সাব-মারসিবল ও সেন্টিফিউগাল পাম্প, অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেম, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, উন্নতমানের সাউন্ড সিস্টেমসহ কনফান্সে সিস্টেম, পিএবিএক্স, কম্পাউন্ড ও সিকিউরিটি লাইট, সোলার সিসিটিভি, বজ্রনিরোধক ব্যবস্থা, এয়াকুলার প্রভৃতি।
এছাড়াও ৯০ ফুট উচ্চতায় মিনার এবং ২৮ ফুট ব্যাসের প্রধান গম্ভুজসহ ১১ ফুট ব্যাসের ২টি ১৩ ফিট ব্যাসের ১টি গম্ভুজ নির্মিত হয়েছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীনে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে গণপূর্ত ময়মনসিংহ বিভাগ।





© কপিরাইট © সর্বস্বত্ব অনিন্দ্যবাংলা কর্তৃক সংরক্ষিত ২০০০-২০২০ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Top