[google-translator]
আবহাওয়া:
anindabangla

২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , শুক্রবার , ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

অনিন্দ্যবাংলা ডেস্ক : শেষ পর্যন্ত  ৮০২ একর ভুমিতে স্থাপিত হতে যাচ্ছে নবগঠিত ময়মনসিংহ বিভাগীয় সদর দফতর৷ সদর দফতর স্থাপনে অবশেষে  প্রস্তাবিত ভূমির ৮০২ দশমিক ৫৭ একরের অনুমোদন দিয়েছে সরকার।অনুমোদনের পাশাপাশি ভূমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ প্রদান ও পুনর্বাসন শীর্ষক প্রকল্পের ডিপিপি ও অবকাঠামো নির্মাণের জন্য টিএপিপি প্রস্তুত করে প্রেরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

৪ সেপ্টেম্বর রোববার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা-৪ শাখার উপসচিব নূর্সিয়া কমল স্বাক্ষরিত জেলা প্রশাসক বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে এ অনুমোদন দেয় হয়। চিঠিতে সব বিধি-বিধান অনুসরণপূর্বক ভূমি অধিগ্রহণের জন্য প্রশাসনিক অনুমোদন দেয়া হয়।

ব্রহ্মপূত্র নদের ওপারে ৫টি মৌজায় ৮০২ দশমিক ৫৭ একর জমিতে  বিভাগীয় সদর দফতরের প্রশাসনিক ভবন, কর্মকর্তাদের বাসভবন, নভোথিয়েটার, স্পোর্টস কমপ্লেক্সসহ  প্রয়োজনীয় সকল স্থাপনার কাজ খুব শীঘ্রই শুরু হবে।

ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার কামরুল হাসান জানান, নানা চড়াইউতরাই শেষে সবার প্রাণের দাবি  ময়মনসিংহ বিভাগীয় সদর দফতর স্থাপনের লক্ষ্যে প্রস্তাবিত ৯৪৫ একর ভূমির মধ্যে ৮০২ দশমিক ৫৭ একর ভূমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ প্রদান ও পুনর্বাসন প্রকল্পের প্রশাসনিক অনুমোদন পেয়েছি। শীঘ্রই এ প্রকল্পের ডিপিপি ও অবকাঠামো নির্মাণের জন্য টিএপিপি প্রস্তুত করে প্রেরণ করা হবে।

জানা গেছে, নদের ওপারে সদর দফতরকে ঘিরে ব্র‏হ্মপুত্র নদের ওপর ৪টি ব্রিজ নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে সিটি কর্পোরেশনের রহমতপুর এলাকায় ১৬শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি ব্রিজ, খাগডহর পয়েন্টে একটি ব্রিজ, কেওয়াটখালীতে একটি ব্রীজ (৫ লেনের এই ব্রীজের নির্মাণ ব্যায় ২ হাজার কোটি টাকা) এবং নগরীর জিরোপয়েন্টে আরও একটি ব্রিজ তৈরি করার প্রক্রিয়া চলছে;  এর ফলে এই শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে বিভাগীয় সদর দফতরে সর্বসাধারণের যাতায়াতের সুবিধা বাড়বে। নদের ওপারে প্রাকৃতিক  পরিবেশ ও নদের অবস্থান ঠিক রেখে এসব প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য , ২০১৫ সালের ১৩ আক্টোবর দেশের অন্যতম বৃহৎ জেলা ময়মনসিংহকে দেশের ৮ম বিভাগে উন্নীত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  আগামী ১৩ অক্টোবর বিভাগ ঘোষণার ৫ বছর পেরোবে। ৫ বছর পূর্তির আগেই বিভাগীয় সদর দফতর স্থাপনের কাজ শুরু হচ্ছে এমন সুসংবাদে ময়মনসিংহবাসীর মনে আনন্দ ও উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সমাজকর্মী জানান, যেখানে সাড়ে ৪ হাজার একর ভুমি নিয়ে আধুনিক স্যাটেলাইট বিভাগীয় শহর স্থাপিত হওয়ার কথা সেখানে মাত্র ৮০২ একর ভুমি! ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি!  যাক তবুও সকলকে ধন্যবাদ যে,  শেষ পর্যন্ত দফতরটা হচ্ছে!

 

 

  • এক বছর আগে!

https://www.jagonews24.com/amp/547934





Top